Posts

চুলের যত্ন সম্পর্কে যত কথা

চুলের যত্ন

চুলের যত্নের বিজ্ঞাপনগুলিতে মডেলের দোল খেলানো সেই বাউন্সি চুলগুলো বেশিরভাগ সময় আপনার কাছে অনেকটাই স্বপ্নের মতো বলে মনে হয়, তাই না? সুন্দর, ঘন, কালো, লম্বা চুল কে না চায়। চুল সুস্থ, ঘন ও খুশকিমুক্ত রাখতে অবশ্যই চুলের যত্ন নিতে হবে। চুলের যত্ন সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা মতামত দিয়েছেন যে চুলের সঠিক যত্নের সাথে স্বাস্থ্যকর চুলের স্বপ্ন বাস্তবে রূপান্তরিত হতে পারে। অনেকেই ভাবেন চুলের যত্ন কিভাবে নিতে হয়?

চুলের যত্নে কি করবেন?

চুলের যত্নে করণীয়:

১. নিয়মিত আপনার চুল ধুয়ে নিন
নিয়মিত আপনার চুল ধুলে আপনার মাথার ত্বক এবং চুলের ময়লা মুক্ত হয় অতিরিক্ত তেল মুক্ত হয়। তবে আপনার চুলের ধরণ এবং ব্যক্তিগত পছন্দের উপর নির্ভর করে আপনা চুল ধোয়ার ব্যাপার। আপনার চুল যদি খুব শুষ্ক থাকে তবে আপনার চুল ধোয়া সপ্তাহে দু’বার সীমাবদ্ধ করুন। আপনার যদি মাথার ত্বক তৈলাক্ত থাকে তবে প্রতিদিন আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন।

২. কেমিক্যাল ফ্রি শ্যাম্পু ব্যবহার করুন
আপনার চুল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার জন্য পরিবেশগত কারণগুলি আপনি সত্যই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না, তবে আপনি যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন তা হ’ল আপনি কি ধরণের শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন। আপনার শ্যাম্পুতে কেমিক্যালের পরিমাণ কমান, আপনার চুল স্বাস্থ্যকর করুন। আপনার চুলের ধরণ অনুযায়ী উপযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করুন যা আপনার চুলে স্যুট করে।

৩. সঠিকভাবে কন্ডিশনার ব্যবহার করুন
আপনার কন্ডিশনারটিতে এমন উপাদান রয়েছে যা চুল সোজা এবং ঝড়ঝড়ে করে তোলে। এটি আপনার চুলকে পরিবেশগত রুক্ষতা এবং হিট স্টাইলিং করা থেকে রক্ষা করে। তবে কন্ডিশনার শুধুমাত্র আপনার চুলে ব্যবহার করা উচিত, মাথার ত্বকে প্রয়োগ করা উচিত নয়। এছাড়াও, কন্ডিশনার ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে ভুলবেন না অবশ্যই। ভালো মানের কন্ডিশনার পেতে এখানে ক্লিক করে দেখে নিতে পারেন।

৪. প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুল শুকান
আমরা জানি, হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে শুকানো চুলগুলি অন-স্ক্রিনে অনেক সুন্দর করে তোলে। তবে অতিরিক্ত তাপ আপনার চুলের ক্ষতি করে। আপনার যদি স্টাইল করতেই হয় তবে গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলিতে/অনুষ্ঠানগুলিতে এটি সীমাবদ্ধ করুন। শ্যাম্পুর পরে চুল বাতাসে শুকানো বা তোয়ালে দিয়ে শুকানো সবচেয়ে ভাল উপায়। ভেজা চুলে কখনও ঘুমোবেন না। তোয়ালে দিয়ে ঘষলেও আপনার চুলের ক্ষতি হতে পারে। চুলের প্রতি একটু যত্নবান হোন।

৫. আপনার চুলে নিয়মিত তেল দিন
তেল এবং ম্যাসেজ আপনার মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে, আপনার পেশী শিথিল করে, চুল চকচকে করে এবং চুল পুষ্ট করে। তেল আর্দ্রতার পরিমাণ পুনরুদ্ধার করে, চুলের বৃদ্ধি সক্ষম করে এবং আগা ফাঁটা পূরণ করে। আপনি নারকেল তেল, বাদাম তেল, জলপাই তেল, ক্যাস্টর অয়েল এগুলোর মধ্যে থেকে চয়ন করতে পারেন। আপনি স্বাস্থ্য উজ্জল চুলের জন্য ড্রেসআপের কেশ টনিক ব্যবহার করতে পারেন। এটি চুল পড়া বন্ধ করে এবং নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। খুসকী রোধ করে এবং চুলের আগা ফাটা বন্ধ করে। চুলে খনিজ তেল ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।
একটি প্রশস্ত দাঁতযুক্ত চিরুনি ব্যবহার করুন। প্রাকৃতিকভাবে আপনার চুল স্টাইল করুন। নিয়মিত আপনার চুল কাটুন। প্রতি ৬-৮ সপ্তাহে চুলের আগা কাটলে চুল ফাটা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। বেশি বেশি পানি পান এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হবে। সূর্যের আলো যেমন আপনার ত্বকের জন্য ক্ষতিকর প্রভাব ফেলেছে, তেমনি এটি আপনার চুলেরও প্রচুর ক্ষতি করে। প্রখর সূর্যের রশ্মি আপনার চুলের আর্দ্রতা শুষ্ক, ভঙ্গুর করে এবং সময়ের সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস্ত করে তুলতে পারে। এই ক্ষতি থেকে আপনার চুল রক্ষা করতে আপনি হেয়ার ক্যাপস / টুপি অথবা স্কার্ফ ব্যবহার করুন।

যা করণীয় নয়

১. গরম পানি ব্যবহার
চুল ধুতে গরম পানি ব্যবহার করবেন না। এতে আপনার চুল রুক্ষ এবং জট বেঁধে যেতে পারে। মাথার ত্বককে শুষ্ক করে তুলতে পারে। ঠান্ডা পানিতে চুল ধোয়া খুবই উপকারি।

২. মানসিক চাপ
যদি আপনি স্বাস্থ্যকর চুলের কাউকে লক্ষ্য করেন তবে আমরা আমাদের জীবন বাজি রাখতে পারি এবং বলতে পারি যে তারা কিছুটা কম চিন্তা করেন। মানসিক চাপ চুল পড়া এবং অস্বাস্থ্যকর চুলের কারণ হতে পারে। তাই মানসিক চাপ কমিয়ে ফেলুন।

৩. রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার
চুলের চিকিৎসায় ব্যবহৃত উপাদান থেকে দুরে থাকাই ভালো। কারণ, এগুলো চুলের বৃদ্ধি ব্যহত করে এবং চুল পড়ার বড় একটি কারণ হতে পারে।

৪. চুল স্টাইলিং পণ্য
দীর্ঘ সময়ের জন্য স্ট্রেইটনার, ব্লো ড্রায়ার এবং কার্লার ব্যবহার করে হিট স্টাইলিং করলে চুলের অবস্থার পরিবর্তন হয়, চুল শুষ্ক এবং রুক্ষ প্রবণ করে তোলে। তাই যতটা সম্ভব এগুলো কম ব্যবহার করুন।

৫. লবনাক্ত পানিতে চুল ধোয়া
লবনাক্ত পানি চুলের ছত্রাককে নষ্ট করে, মাথার ত্বক জ্বালা করে এবং চুলে জটলা ধরায়। তাই লবনাক্ত পানি এবং ক্লোরিনযুক্ত সুইমিংপুলের পানি এড়িয়ে চলুন।

আপনি যদি আপনার চুলের যত্ন না নেন, তবে একটি নির্দিষ্ট সময় পরে বৃদ্ধি বন্ধ হতে পারে। আস্তে আস্তে, আপনি খুশকি, চুল পড়া, শুষ্কতা এবং নিস্তেজতা অনুভব করতে পারেন। দীর্ঘ সময় ধরে চুল না ধুয়ে ফেলা চুল নষ্ট করতে পারে। চুলের যত্নের ভুল পণ্য ব্যবহার করলে আপনার মাথায় চুলকানি হতে পারে এবং চুল পড়া বৃদ্ধি পেতে পারে। হ্যা, আপনি ঠিক শুনছেন!
সুতরাং আপনি কেমিক্যাল ফ্রি পণ্য ব্যবহার করে চুলে আপনার নিজস্ব স্টাইল নিয়ে আসতে পারেন। উপরের নিয়মগুলোকে অনুসরণ করে আপনার চুলের খারাপ দিনগুলোকে চিরবিদায় দিতে পারেন। চুলের যত্নে অবশ্যই ভালো তেল ব্যবহার করা প্রয়োজন। আয়ুর্বেদিক তেল খুবই উপকারী যেমন- কেশ টনিক। অতিরিক্ত এবং অস্বাভাবিক পরিমাণ চুল পড়া বা মাথার ত্বকে সমস্যা হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Recommended Conditioner by Dress Up:

Leave a Reply

Your email address will not be published.